বাংলায় সর্বপ্রথম, সর্ববৃহৎ ও সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক ও সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন একদম বিনামূল্যে এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশান না করেই অংশগ্রহণ করতে পারবেন তবে, সর্বোচ্চ সুবিধার জন্য বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশান করুন!

> বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক এবং সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন।

Welcome to Helpful Hub, where you can ask questions and receive answers from other members of the community.

14.6k টি প্রশ্ন

16.2k টি উত্তর

5.7k টি মন্তব্য

6k জন নিবন্ধিত

0 টি ভোট
321 বার প্রদর্শিত

Assalamu alaikum.. ami Ctg the thaki. married.. age 26. November 2015 te amr biya hoi. ami relation kre biya kori. amr biyar doi din por thake amr shashuri onek kharap behave korce. bolce ami prem Kore ashchi so kicu bolte parbona. dowryr jonno onk kotha bole. abbur basha thake ata ota ante bole. ami amr husband k bolechi o boleche ai bapare kicu korte parbena. ami 4_year final dicchi. amr study te problem hocce. amk porte daklai galagali Kore. ami onek manoshik problems a achi... plz help...

"সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাত সদস্য

3 উত্তর

0 টি ভোট
যদি নিজেকে সামান্য ভালবেসে থাকেন, তবে বাপের বাড়ি যান আর ডাইভোর্স দিয়ে দিন। আপনার স্বামীও ঠিক হবে না আর শ্বাশুড়ির কথা বাদ দিলাম- এটা প্রায় ৯৯.৯৯% সঠিক হবে বলে আমার বিশ্বাস। রাগারাগি বা মেজাজ গরম বা কথা কাটাকাটি না করে সুযোগ বুঝে বাসার কাউকে আসতে বলে তার সাথে বাসায় ফিরে যান বা বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে চলে আসুন। যে স্বামী বলে যে, তার কিছুই করার নেই তার সাথে কোন ভরসায় থাকবেন তা ভাববার বিষয়। যেহেতু লেখাপড়া করছেন তাই বাসায় ফিরে গিয়ে লেখাপড়া করুন। আল্লাহ আপনার ভাল করুক।

 

 

Signature:

"সৎ কাজ করার চেয়ে সৎ সঙ্গ অধিক উত্তম।"
উত্তর প্রদান করেছেন Expert Senior User (6.3k পয়েন্ট)
0 টি ভোট

আপনার কথা শুনে মনে হলো বিয়েটি উভয় পরিবার মেনে নিয়েছে। সাধারণত বউদের কাছে শাশুড়ি যেমন নিজের মায়ের মতন হয় না, তেমনি শাশুড়ির কাছে বউ তার নিজের মেয়ের মতন হয় না। তবুও অনেক ত্যাগ স্বীকার করে সবকিছু ধৈর্য্যের সাথে মানিয়ে চলতে হয়। কিন্তু বউ শাশুড়ির সম্পর্ক যখন "যৌতুক" নামক ব্যাধির কারণে খারাপ হয় তখন সেই সম্পর্ক ভালো হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। এরকম অবস্থায় হাজবেন্ড এর সাপোর্ট খুবই দরকার হয় কিন্তু সেই হাজব্যান্ড যখন মুখ ফিরিয়ে নেয় তখন পরিস্থিতি আরো কঠিন হয়ে যায়।

যেহেতু আপনারা সম্পর্ক করে বিয়ে করেছেন তাই আপনার শাশুড়ি হয়তো আগেই চিন্তা করে রেখেছিলেন যে, ছেলেকে অনেক বড় লোকের মেয়ের সাথে বিয়ে দেবেন এবং অনেক টাকা-পয়সা বা জিনিসপত্র দাবী করবেন। তার সেই আশা পূরণ হয়নি তাই সেই রাগ আপনার উপরেই ঝেড়ে নিচ্ছেন। কিন্তু আপনি এমন একটি ছেলেকে পছন্দ করে বিয়ে করেছেন যিনি এই সময়ে আপনাকে সমর্থন না করে নিশ্চুপ থাকছেন। হয়তো নিরাবতাই সম্মতির লক্ষণ। হতে পারে এটা আপনার একটা ভুল ছিলো কিন্তু পড়াশুনা বন্ধ করে ২য় ভুলটি করবেন না। পড়াশুনা চালিয়ে যান এবং ধৈর্য ধরুন। বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী যৌতুকের জন্যে শারীরিক কিংবা মানসিক নির্যাতন করা এক ধরণের অপরাধ। যদি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় তাহলে অবশ্যই আইনের সাহায্য নেওয়া উচিৎ। আপনার শ্বশুরবাড়িতে আর্থিক অবস্থা কেমন তা জানি না। তাই অভাব নাকি লোভ সেটা বলতে পারছি না তবুও অভাবে পড়লেও কখনোই যৌতুকের দাবী করা উচিৎ নয়। কারণ প্রত্যেক বাবা তার মেয়েকে বিয়ের পর সামর্থ অনুযায়ী কিছু দেওয়ার চেষ্টা করেন। এর বাইরে কিছুই দাবী করা উচিৎ নয়। তবে, সব থেকে বুদ্ধিমানের কাজ হলো, আপনার স্বামীর সাথে এই বিষয়টি ভালোভাবে আলোচনা করে নিন। সাধারণত বাবা-মা এর কাছ থেকে ছেলে বউকে নিয়ে আলাদা থাকবে এই ব্যাপারটি সমর্থন করি না। তবুও পরিস্থিতি এরকম হলে আলাদা থাকা উচিৎ। তবে, সবার আগে সমস্যাগুলো নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে সমাধান করার চেষ্টা করা উচিৎ। আর কোনোভাবেই এই সমস্যাগুলোর প্রভাব আপনার পড়াশুনার উপর পড়তে দিবেন না। কারণ পড়াশুনাটা আপনার শক্তি। পড়াশুনা শেষ করে যখন ভালো একটা চাকুরী করবেন তখন আপনার শাশুড়ি আপনাকে মানসিক নির্যাতন করার সাহস পাবে না। তবে ভবিষ্যতে যদি আপনার শাশুড়ি তার চিন্তাধারা পরিবর্তন না করে এবং আপনার স্বামী যদি আপনার পক্ষে কথা না বলে তাহলে এই সম্পর্কের শেষ পরিনতি ডিভোর্স পর্যন্ত গড়ালে মোটেই অবাক হবো না। একটা সম্পর্ক ভেঙ্গে যাবে এটা কারো কাম্য নয় তবুও পরিস্থিতি যদি এরকম হয় তাহলে সেই সম্পর্ক ভেঙ্গে ফেলা উচিৎ।

আপনার হাতে ৩টি অপশন।
১। ভালোভাবে বুঝানো।
এতে কাজ না হলে,
২। আপনার স্বামীর সাথে আপনার সম্পর্ক যদি খুব ভালো হয় তাহলে শাশুড়ির থেকে আলাদা বসবাস করা।
এতেও কাজ না হলে,
৩। বাপের বাড়ি গিয়ে পড়াশুনা শেষ করা। তবে এই ক্ষেত্রে যদি সম্পর্কটি ভেঙ্গে ফেলতে হয় অর্থাৎ ডিভোর্সের প্রয়োজন হয় তাহলে সেটাও দেওয়া উচিৎ।

এই ব্যবস্থাগুলো আরো আগেই নেওয়া উচিৎ ছিলো। তবে এখনো খুব বেশি দেরি হয়নি।

উত্তর প্রদান করেছেন অজ্ঞাত সদস্য
0 টি ভোট
আপনাকে শুধু একটাই বলব যে, আপনি আপনার শাশুড়ির জন্য মামলা করেন। এতে কাজ না হলে স্বামীকে নিয়ে আলাদা বাসায় উঠেন। তাতে যদি আপনার স্বামী রাজি না হয়, তাহলে ডিভোর্স ছাড়া কোন উপায় নেই।

 

 

Signature:

"জানার আছে, বলার আছে"
উত্তর প্রদান করেছেন Senior User (144 পয়েন্ট)

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+1 টি ভোট
5 টি উত্তর
06 জানুয়ারি 2013 "সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন sakibulhimel Junior User (41 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
06 ফেব্রুয়ারি 2016 "সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন diya
+2 টি ভোট
10 টি উত্তর
03 নভেম্বর 2012 "সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন sakibulhimel Junior User (41 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
2 টি উত্তর
12 এপ্রিল 2016 "সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন alauddin poet
+3 টি ভোট
3 টি উত্তর
26 অগাস্ট 2013 "সমাজ ও সম্পর্ক" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাত সদস্য

 

(হেল্পফুল হাব এ রয়েছে এক বিশাল প্রশ্নোত্তর ভান্ডার। তাই নতুন প্রশ্ন করার পূর্বে একটু সার্চ করে খুঁজে দেখুন নিচের বক্স থেকে)

(হেল্পফুল হাব সকলের জন্য উন্মুক্ত তাই এখানে প্রকাশিত প্রশ্নোত্তর, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর)

...