বাংলায় সর্বপ্রথম, সর্ববৃহৎ ও সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক ও সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন একদম বিনামূল্যে এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশান না করেই অংশগ্রহণ করতে পারবেন তবে, সর্বোচ্চ সুবিধার জন্য বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশান করুন!

> বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক এবং সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন।

Welcome to Helpful Hub, where you can ask questions and receive answers from other members of the community.

14.6k টি প্রশ্ন

16.2k টি উত্তর

5.7k টি মন্তব্য

5.9k জন নিবন্ধিত

0 টি ভোট
4.2k বার প্রদর্শিত
"ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন New User (9 পয়েন্ট)
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন

1 উত্তর

+1 টি ভোট

প্রথমত মুসলিমদের জন্যে পিরিয়ডের সময় সংগম করা নিষেধ। তবে পিড়িয়ডের সময় মিলিত হলে প্রেগন্যান্ট হবার সম্ভাবনা একেবারেই কম থাকে। সাধারনত থাকে না।

গর্ভবতী মেয়েদের য়লক্ষনঃ
মাসিক বন্ধ থাকা,
বমি বমি ভাব থাকে,
এবং স্তনে ব্যথা থাকে।

তবে এই লক্ষন গুলো সংগম এর পরের দিনেই দেখা দেবে না তাই নিশ্চিত হতে হলে আপনার প্রেগন্যান্সি টেস্ট করা উচিত।

উত্তর প্রদান করেছেন রাইসুল ইসলাম

মাসিক শেষ হওয়ার পরের ৪/৫ দিনের মধ্যে করলে সম্ভাবনা কতটুকু?

সম্ভাবনা ১%

স্বাভাবিকভাবে আপনার গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আবার অনেক সময় হতেও পারে। তবুও ধরে নিচ্ছি সম্ভাবনা খুবই কম। মূলত পিরিয়ড শুরুর আগের ৯ দিন, এবং পিরিয়ড শুরুর পরের ৯দিন নিরাপদ সময় থাকে। এই সময়কে নিরাপদ সময় / সেইফ পিরিয়ড বা ফারটাইল পিরিওড বলে। এখন ৩০ দিনের মাস ধরলে আগের মাসের ২১ থেকে ৩০ এবং এ মাসের ১ থেকে ৯ নিরাপদ। আবার মাসিক শুরু হওয়ার পর ৯ম থেকে ২১তম দিন পর্যন্ত অনিরাপদ। এই সময় কে অনিরাপদ বা উর্বর সময় বলে।
নিচে বিস্তারিত ব্যাখ্যা তুলে ধরলামঃ
মাসিক ঋতুচক্রের মাঝামাঝি (অর্থাৎ ১৪ দিনের মাথায়) লুটিনাইজিং হরমোন (LH) ক্ষরণের ৩৬-৩৮ ঘন্টার মধ্যে ডিম্বকোষ (Ovum) নির্গত হয়। এই বেরুনর পর ডিম্বকোষ যদি ৩৬ ঘন্টার মধ্যে উপযুক্ত সংখ্যক শুক্রকোষ পায় তবে তার একটির সাথে মিলিত হয়ে সন্তান দিতে পারে। তবে ডিম্বকোষটি জীবিত থাকে আরো প্রায় ৩৬ ঘন্টা অর্থাৎ ডিম্বকোষের আয়ু সর্বমোট ৭২ ঘন্টা বা তিনদিন। অন্যদিকে যৌনমিলনের পর জরায়ু তথা ডিম্বনালীতে প্রবেশের পর শুক্রকোষও (spermatorza) জীবিত থাকতে পারে সর্বাধিক ৭২ ঘন্টা। তাই ২৮ দিনের মাসিক ঋতুচক্রের মাঝামাঝি মোট প্রায় ১২০ ঘন্টা (৫দিন) হচ্ছে উর্বর সময়,–এই সময় যৌনমিলন হলে সন্তানের জন্ম হতে পারে। মোটামুটি মাসিকের ১৪ দিনের মাথায় ডিম্বকোষ হচ্ছে ধরে নিয়ে তার ২-৩ দিন আগে ও ২-৩ দিন পরে হচ্ছে এই উর্বর সময়।

তবে যারা সন্তান নিতে চান না, তাদের এটিও জেনে রাখা দরকার যে, এই ডিম্বকোষের নির্গমনের (ovalution) দিনটি প্রচণ্ড পালটায়। তাই এর সঙ্গে আগে ও পরে আরো দু’একদিন যোগ করা ভাল।

তবু মাসিক ঋতুচক্রের ৯ম দিনের আগের ও ২০শ দিনের পরেকার সময়কে মোটামুটি নিরাপদ সময় বলে ধরা যায়। এই সময় যৌনমিলন ঘটলে তার থেকে সন্তান ধারণের তথা গর্ভবতী হওয়ার সম্বাবনা থাকে না, কারণ এই সময় ডিম্বকোষ বেরোয়ই না।

কিন্তু বিরল হলেও এটিও দেখা গেছে যে, মাসিক চক্রের যে কোনওদিন (তথাকথিত ঐ নিরাপদ সময়ের দিনগুলিসহ) মাত্র একবারের যৌনমিলনেও নারী গর্ভবতী হতে পারে অর্থাৎ বিরল ক্ষেত্রের মাসিক চক্রের যে কোন সময়ই ডিম্বকোষ বেরুতে পারে। তাই এই হিসাবে তথাকথিত নিরাপদ সময় বলে কিছু নেই। তবে এটি নেহাৎই ব্যতিক্রম।

সাধারণভাবে ৯ম দিনের আগে ও ২০শ দিনের পরের সময়টি নিরাপদ সময় এবং ৯ম-২০শ দিনের মধ্যকার সময়টিকে উর্বর সময় হিসাবে ধরা যায়, আর এর মধ্যেও দ্বাদশ থেকে ষোড়শ (মতান্তরে ১৩ম থেকে ১৭ম) দিনটি উর্বরতম সময়।
তবে মাসিকের সময় যৌনমিলন করা উচিত নয়। এতে অনেক রকমের সমস্যা হতে পারে।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
24 মে 2015 "ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Imran Munna New User (0 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
2 টি উত্তর

 

(হেল্পফুল হাব এ রয়েছে এক বিশাল প্রশ্নোত্তর ভান্ডার। তাই নতুন প্রশ্ন করার পূর্বে একটু সার্চ করে খুঁজে দেখুন নিচের বক্স থেকে)

(হেল্পফুল হাব সকলের জন্য উন্মুক্ত তাই এখানে প্রকাশিত প্রশ্নোত্তর, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর)

...