বাংলায় সর্বপ্রথম, সর্ববৃহৎ ও সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক ও সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন একদম বিনামূল্যে এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশান না করেই অংশগ্রহণ করতে পারবেন তবে, সর্বোচ্চ সুবিধার জন্য বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশান করুন!

> বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক এবং সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন।

Welcome to Helpful Hub, where you can ask questions and receive answers from other members of the community.

15.1k টি প্রশ্ন

16.8k টি উত্তর

5.9k টি মন্তব্য

6.8k জন নিবন্ধিত

0 টি ভোট
892 বার প্রদর্শিত

আমার বয়স ১৯ ! কিন্তু আমার ওজন ৫৬ কেজি ! আমি কিভাবে অল্প সময়ে আমার স্বাভাবিক ওজন পেতে পারি?

"ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন

1 উত্তর

+2 টি ভোট

বয়স হিসাবে আপনার ওজন যথেষ্ট কিন্তু আপনি কেন ওজন বাড়াতে চাচ্ছেন তা বুঝলাম না। বেশি মোটা হয়ে গেলে যেমন ভালো দেখায় না, আবার বেশি শুকনো হয়ে গেলেও তেমন ভালো দেখায় না। যাদের ওজন একটু বেশি-ই কম তাদের অনেকেরই ওজন বাড়ানোর ইচ্ছা থাকতে পারে। ওজন বাড়ানোর মানে এই নয় যে শুধু বেশি করে খেতে হবে। কেননা অনেকে সারাদিন খেয়েও ওজন বাড়াতে পারে না। প্রথমেই জেনে নিন কেনআপনার ওজন স্বাভাবিক থেকে কম-
১)জীনগত কারণে
২)মানসিক দুশ্চিন্তার কারণে
৩)অসুস্থতার ও ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার
কারণে
৪)প্রয়োজনের বেশি ব্যায়াম করার কারণে
এগুলোর মধ্যে একটিই মূলত আপনার স্বাস্থ্য খারাপ হওয়ার জন্য দায়ী। এখন জেনে নিন কিভাবে আপনি ওজন বাড়াতে পারবেন-

১) যারা একেবারে বেশি খাবার খেতে পারেন না তারা দিনে ৩ বার না খেয়ে খাবার ভাগ করে নিন পুরো দিনের জন্য। অল্প অল্প করে সারাদিন খেতে থাকুন। এ ক্ষেত্রে দিনে ৫/৬ বার খেতে পারেন।

২) ওজন বাড়ানোর জন্য অনেকে বেশি জাঙ্ক ফুড (বার্গার, হট-ডগ, পিজ্জা, চিপস) খেয়ে থাকেন। কিন্তু এগুলোতে চিনি ও তেল বেশি পরিমাণে থাকে। তাই ওজন না বেড়ে অনেক সময় শরীরে চর্বি জমতে পারে যা ক্ষতিকর। তাই জাঙ্ক ফুড বেশি না খেয়ে প্রতিদিন বেশি করে স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার বেশি খাওয়ার চেষ্টা করুন উপকার পাবেন।

৩) প্রতিদিনের খাবারে প্রোটিন জাতীয়
খাবার বেশি করে যুক্ত করুন। দুধ, ডিম, মাছ- মাংস, পনিরে অনেক প্রোটিন থাকে। এসব খাবার বেশি করে খেলে আপনার স্বাস্থ্য ভালো হবে।

৪) সকালের নাস্তা করার ১ ঘন্টা পর পাউরুটির সাথে পি-নাট বাটার লাগিয়ে খান। পাউরুটি গোটা শস্যের তৈরী হলে বেশি উপকার পাবেন।

৫) সবজি খাওয়ার আগে তার সাথে মাখন বা মার্জারিন, সস, পনির মিশিয়ে নিবেন। এরপর শুধু বা ভাতের সাথে খাবেন।

৬) প্রতিদিন আলু ও ডাল খাওয়ার চেষ্টা করুন। যে কোন সব্জী বা তরকারীর সাথে আলু মানিয়ে যায়। তাই আলুর উপর প্রাধান্য দিন।

৭) চর্বিহীন লাল মাংস খাবেন।

৮) ঘুমাতে যাওয়ার ঠিক আগে খেয়ে নিবেন। ভাত না খেতে পারলে নুডলস বা পাস্তা বানিয়ে নিন বেশি করে বিন, আলু, অলিভ অয়েল, মুরগির মাংস, গাজর দিয়ে। নুডলস বা পাস্তা যখনই খাবেন তার সাথে পনির মিশিয়ে নিবেন।

৯) প্রতিদিন অন্তত ৩ বেলা ভাত খাবেন। কম করে হলেও খাবেন।

১০) দিনে ৪ ঘন্টার বেশি খালি পেটে থাকবেন না।

১১) বিকেলের নাস্তায় যে কোন এক ধরণের খাবার না খেয়ে কয়েক ধরণের খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। ৩ ধরণের খাদ্য বিভাগ একসাথে খাওয়ার চেষ্টা করুন। যেমনঃ সর পড়া দুধ, একটি কলা ও মাখন দিয়ে ভাজা পাউরুটি।

১২) প্রতিদিন এক গ্লাস সর পড়া দুধ পান করবেন ও ১টি ডিম খাবেন।

১৩) ওজন বাড়ানোর ক্ষেত্রে তরল খাবার ভালো কাজ করে। সকালের নাস্তায় রুটি না খেয়ে পাতলা করে রান্না করা খিচুড়ি খান। এর সাথে সব্জী বা মুরগির মাংস মিশিয়ে নিবেন। ফলের রস বানিয়ে খান। বাইরে থেকে কেনা জ্যুস না খেয়ে বাসায় বানিয়ে নেয়াই ভালো হবে। ফলের রস খেতে ভালো না লাগলে স্মুদি (smoothie) বানিয়ে খান। স্মুদি বানানোর সময় এতে দুধ, আইস-ক্রিম মিশিয়ে নিতে পারেন, স্বাদ বাড়বে।

১৪) নাস্তায় দই, চীনাবাদাম, কাজুবাদাম খান। অনেক উপকার পাবেন।

১৫) অ্যাভোকাডো, দুধের তৈরী খাবার
খাওয়া বাড়িয়ে দিন।

ব্যায়াম করলে ওজন কমে ঠিক-ই তবে ঠিকমত ব্যায়াম করা শরীর সুস্থ্য রাখার উপায়ের মধ্যে একটি। পেশী গঠন করার ব্যায়াম করতে পারেন। এতে দেখতে স্বাস্থ্যবান লাগবে। ইয়োগা এক্ষেত্রে ভালো বিকল্প। ওজন না বাড়ার মূল কারণ হল শরীরের পরিমিত ক্যালরি না পাওয়া। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের দৈনিক অন্তত ১২০০ ক্যালরি প্রয়োজন। তাই ওজন বাড়াতে ইচ্ছুক হলে দৈনিক অন্তত ১৫০০ ক্যালরি খাবার খাবেন। অপুষ্টিও ওজন না বাড়ার কারণ। পুষ্টিকর খাদ্য যত খাবেন স্বাস্থ্য ভালো হওয়ার সম্ভাবনাও তত বাড়বে। এতকিছু করেও যদি আপনার ওজন না বাড়ে তাহলে ভালো পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন। আপনার ওজন কম হওয়ার পিছনে জীনগত কারণ থাকলেও কোন কাজ হবে না। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকের সম্পন্ন হওয়াই ভালো।

সতর্কতাঃ দোকানে ওজন বাড়ানোর বিভিন্ন সাপ্লিমেন্ট বা ট্যাবলেট পাওয়া যায় যা কাজ করে না ও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোন সাপ্লিমেন্ট নিতে যাবেন না। যে সব খাবারে ট্রান্স-ফ্যাট থাকে সেগুলো বেশি করে খেলে পেটে চর্বি জমে। যেমনঃ প্রক্রিয়াজাত মাংস, প্যাকেজ- জাত জলখাবার। তাই এসব খাদ্য খাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকবেন।

উত্তর প্রদান করেছেন

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
10 ফেব্রুয়ারি 2017 "ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Miraj New User (4 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
2 টি উত্তর
20 এপ্রিল 2015 "ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Md. Raju Ahmed New User (0 পয়েন্ট)
+2 টি ভোট
5 টি উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
+1 টি ভোট
3 টি উত্তর
20 নভেম্বর 2013 "ডাক্তার ও চিকিৎসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন ASRAFUL New User (3 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
20 নভেম্বর 2017 "খেলাধুলা ও শরীরচর্চা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন মুরাদ হোসাইন New User (0 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
30 সেপ্টেম্বর 2015 "খেলাধুলা ও শরীরচর্চা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন মোঃ হোসাইন মুরাদ New User (5 পয়েন্ট)

 

(হেল্পফুল হাব এ রয়েছে এক বিশাল প্রশ্নোত্তর ভান্ডার। তাই নতুন প্রশ্ন করার পূর্বে একটু সার্চ করে খুঁজে দেখুন নিচের বক্স থেকে)

(হেল্পফুল হাব সকলের জন্য উন্মুক্ত তাই এখানে প্রকাশিত প্রশ্নোত্তর, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর)

...