বাংলায় সর্বপ্রথম, সর্ববৃহৎ ও সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক ও সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন একদম বিনামূল্যে এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশান না করেই অংশগ্রহণ করতে পারবেন তবে, সর্বোচ্চ সুবিধার জন্য বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশান করুন!

> বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক এবং সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন।

Welcome to Helpful Hub, where you can ask questions and receive answers from other members of the community.

15k টি প্রশ্ন

16.7k টি উত্তর

5.8k টি মন্তব্য

6.3k জন নিবন্ধিত

0 টি ভোট
450 বার প্রদর্শিত

আমাদের এলাকার মসজিদে জুমার নামাজের দুই রাকাত ফরয নামায পড়ার পূর্বে চার রাকাত নামাজ আদায় করে মানুষরা(খুতবা শুরু হওয়ার পূর্বে)।

"ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন New User (17 পয়েন্ট)

2 উত্তর

0 টি ভোট

দুই রাকাত জুমার নামাযের ফরয নামায পড়ার পূর্বে চার রাকাত নামায পড়া সন্নাতে মুয়াক্কাদা।

দলীল

1.1.
كان يصلي قبل الجمعة أربعا وبعدها أربعا
“Ali (radiyallaahu anhu) reports that Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) used to perform four rakaats salaah before and after the jummah salaah” ( Al-Awsat of Tabrani / Nasb Al-Rayah, vol 2, pg 206, Ilmiyya /I’laus Al-Sunan, vol 7, pg 13, Idaratul Al-Quran)
The chain of narrators in the above narration is sound. (Tarhut Al-Tathreeb, vol 3, pg 36, Ilmiyya)
1.2.
عن عبد الله بن عمر رضي الله عنهما أنه كان يصلي قبل الجمعة أربعا ، لا يفصل بينهن بسلام ، ثم بعد الجمعة ركعتين ، ثم أربعا
“Abdullah Bin Umar(radiyallaahu anhu) reports that Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) used to perform four rakats of salat before the jummu’ah salat and would not separate them with a salaam; then he would perform two rakats of salat after jummu’ah followed with another four rakats of salat” (Sharh Ma’ani Al-Aathaar, vol 1, pg 233, Haqqaniyya)

The chain of narrators in the above Hadith is sound (Aathaar Al-Sunan, pg 302, Imdadiyya)
1.3.
عن عبد الله قال كان يصلي قبل الجمعة أربعا
“Abdullah (bin Mas’ood) reports that Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) used to perform four rakaats before the jummah salaah” (Musannaf Ibn Abi Shayba, vol 4, pg 114, Al-Majlis al-Ilmi)
1.4.
عن أبي هريرة رضي الله عنه ، قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : من كان مصليا ، فليصل قبل الجمعة أربعا ، وبعدها أربعا
“Abu Hurairah (radiyallaahu anhu) reports that Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) said: Whoever intends to perform salat, then he should perform four rakats salat before the jummu’ah salat and four rakats after jummu’ah salat”.(Sharh Mushkil Al-Aathaar,#4108, vol 10, pg 298, Muassasah Al-Risalah)
1.5.
عن أبي عبد الرحمن السلمي قال : كان عبد الله يأمرنا أن نصلي قبل الجمعة أربعا ، وبعدها أربعا
Abu Abdir Rahman Al-Sulami reports: “Abdullah (bin Mas’ood) used to command us to perform four rakaats salaah before the jummah salat and four rakats salat after the jummah salaah” (Musannaf Abdir Al-Razaaq, vol 3, pg 247, Idaratul Quran)

The chain of narrators in the above Hadith is authentic. (Athaar Al-Sunan, pg 303, Imdaadiyya)
1.6.
عن صافية ، قالت : رأيت صفية بنت حيي رضي الله عنها ، صلت أربع ركعات قبل خروج الإمام للجمعة ، ثم
صلت الجمعة مع الإمام ركعتين .
Saafiyah (radiyallaahu anha) reports: “I saw Safiyyah Binti Huyay (radiyallaahu anha) performing four rakaats of salaah before the Imaam came out for jummah salat , then she performed two rakaats of jummah salaat with the Imaam” (Nasbur Al-Raayah, vol 2, pg 207, Makkiyya)
1.7.
عن إبراهيم قال كانوا يصلون قبلها أربعا.
“Ibrahim (Al-Nakha’ee) reports that the Sahaba used to perform four rakaats of salaah before the jummah salaah” (Musannaf Ibn Abi Shaybah, vol 4, pg 114, Al-Majlis al-Ilmi)
1.8.
عن عبد الله بن مغفل المزنى أن رسول الله - صلى الله عليه وسلم - قال بين كل أذانين صلاة.......
“Abdullah Bin Mughaffal (radiyallaahu anhu) reports that Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) said: Between every two azans (ie: azan and iqamah) there should be salat” (Sahih Al-Bukhari #624)

The above Hadith teaches us that between azan and iqamah, it is encouraged to perform salat. Therefore, to perform salat between the azan of jummu’ah and the iqamah, as long as the Imam is not delivering the khutbah, will be in conformance to Hadith.
It is clear from the above mentioned Ahadith, that sunnah salat before the Khutbah cannot be denied. This was the practice of Rasulullah (sallallaahu alayhi wa sallam) and his Sahaba.

 

 

Signature:

মোঃ ফজলুল হক www.mfhaq77.blogspot.com ও www.quickestwaytoquran.blogspot.com
উত্তর প্রদান করেছেন Expert Senior User (870 পয়েন্ট)

আপনাকে অনেক ধন্যবাদ। জাজাকাল্লাহু খাইরান।

0 টি ভোট

কাবলাল জুমআ‘:মূলত হাদীস ও আছার সামনে রাখলে বোঝা যায়, জুমআ’র আগের সুন্নাত বা কাবলাল জুমআ’ নামায দুই প্রকারের :

এক.সুন্নাতে যায়িদাহ বা নফল, যার যত রাকাত ইচ্ছা পড়তে পারে। যেমন, সালমান ফারসী (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন-عن سلمان الفارسي قال : قال النبي صلى الله عليه وسلم : لا يغتسل رجل يوم الجمعة ويتطَهَّر ما استطاع من طُهر ويَدَّهن من دُهنِه أو يمس من طيب بيته، ثم يخرج فلا يُفَرِّق بين اثنين، ثم يُصَلِّي ما كُتِب له، ثم يُنْصِت إذا تكلَّم الإمام، إلا غُفِر له ما بينه وبين الجمعة الأخرىকোনো পুরুষ যখন জুমআ’র দিন গোসল করে, সাধ্যমত পবিত্রতা অর্জন করে, তেল ব্যবহার করে বা ঘরে যে সুগন্ধি আছে তা ব্যবহার করে, এরপর (জুমআ’র  জন্য) বের হয় এবং (বসার জন্য) দুই জনকে আলাদা করে না, এরপর তাওফীক মতো নামায পড়ে এবং ইমাম যখন কথা বলে তখন চুপ থাকে, তাহলে অন্য জুমআ’ পর্যন্ত তার (গুনাহ) মাফ করা হয়।(সহীহ বুখারী, হাদীস : ৮৮৩; মুসনাদে আহমদ ৮/৪৩ (২৩৭১০); সহীহ ইবনে হিববান, হাদীস : ২৭৭৬)

দুই. সুন্নতে মুআক্কাদাহ, যার রাকাত-সংখ্যা (চার রাকাত এক সালামে) নির্ধারিত। হাদীস, আছার ও সাহাবায়ে কেরামের আমল দ্বারা এটি প্রমাণিত। যেমন-১.হযরত আবু আইয়ুব আনসারী (রা.) বর্ণনা করেন, 

أن النبي صلى الله عليه وسلم كان يدمن أربع ركعات عند زوال الشمس، فقلت : يا رسول الله إنك تُدْمِن هذه الأربع ركعات عند زوال الشمس، فقال : إن أبواب السماء تفتح عند زوال الشمس. فلا ترتج حتى يُصَلي الظهر، فأحب أن يصعد لي في تلك الساعة خير؟ قلت : أفي كلهن قراءة؟ قال : نعم، قلت : هل فيهن تسليم فاصل؟ قال : لا. রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সূর্য হেলে যাওয়ার পর চার রাকাত নামায পড়তেন। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, এটা কিসের নামায, যা আপনি নিয়মিত পড়েন? তিনি বললেন, এটি এমন একটি সময়, যখন আসমানের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয়। আর আমি পছন্দ করি, যেন এ সময় আমার কোনো নেক আমল উপরে ওঠে। তখন আমি জিজ্ঞাসা করলাম, এর প্রতি রাকাতে কি সূরা মিলাতে হবে? তিনি বললেন, হ্যাঁ। আমি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলাম, এই নামায কি এক সালামে না দুই সালামে? তিনি উত্তর দিলেন, এক সালামে। (তিরমিযী ১/৭৭; আবু দাউদ ১/১৮০)

ইমাম তিরমিযী (রাহ.) হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন।এই হাদীস থেকে জানা গেল, সূর্য ঢলার পর আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সর্বদা (কোনো দিন বাদ দেওয়া ছাড়া) চার রাকাত পড়তেন। জুমআ’র দিনসহ সপ্তাহের সকল দিন এই হাদীসের আওতাভুক্ত। নতুবা সর্বদা পড়া হয় না। তাছাড়া এ চার রাকাতের যে কারণ বর্ণনা করা হয়েছে তা জুমআ’র দিনেও রয়েছে।

২.সহীহ সনদে হযরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. থেকে বর্ণিত আছে যে, كان يصلي قبل الجمعة أربعا. তিনি জুমআর নামাযের আগে চার রাকাত নামায পড়তেন। (মুসান্নাফে আবদুর রাযযাক ৩/২৪৭; মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা ৪/১১৪)

৩.আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) শুধু নিজে চার রাকাত পড়তেন  এমন নয়, তিনি অন্যদেরও চার রাকাত কাবলাল জুমআ’ পড়ার আদেশ দিতেন। তাঁর বিশিষ্ট শাগরিদ আবু আব্দুর রহমান আসসুলামী রাহ.-এর বর্ণনা :كان عبد الله يأمر أن نُصَلِّي قَبْلَ الجُمْعة أربعا، وبعدها أربعا، حتى جاءنا علي فأمرنا أن نصلي بعدها ركعتين ثم أربعا. আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) আমাদেরকে জুমআ’র আগে চার রাকাত এবং জুমআ’র পরে চার রাকাত পড়ার আদেশ করতেন। পরে যখন আলী রা. আগমন করলেন তখন তিনি আমাদেরকে জুমআ’র পরে প্রথমে দুই রাকাত এরপর চার রাকাত পড়ার আদেশ করেন।(মুসান্নাফে আব্দুর রাযযাক খন্ড ৩, পৃ. ২৪৭)

নফল নামাযের বিষয়ে উৎসাহ দেওয়া যায়, আদেশ দেওয়া যায় না। আদেশ করার অর্থ, এই নামায অন্তত সুন্নতে মুয়াক্কাদা, যেমন পরের চার রাকাত সুন্নতে মুআক্কাদাহ।

এ বর্ণনার সনদ সহীহ ও মুত্তাছিল। এই বর্ণনায় লক্ষণীয় বিষয় এই যে, খলীফায়ে রাশিদ আলী ইবনে আবী তালিব (রা.) যখন কুফায় এসে আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.)-এর শিক্ষা দেখলেন এবং তাঁর আদেশ সম্পর্কে অবগত হলেন তখন তিনি কাবলাল জুমআ’র বিষয়ে কোনো পরিবর্তন করেননি, শুধু বা’দাল জুমা চার রাকাতের সাথে আরো দুই রাকাত যোগ করার আদেশ করেছেন। ফলে পরবর্তী সময়ে ইমাম আবু ইউসুফ (রাহ.)সহ আরো অনেক ইমামের নিকটে, জুমআ’র পরের সুন্নত সর্বমোট ছয় রাকাত। এ থেকেও প্রমাণিত হয় খলীফায়ে রাশিদ আলী ইবনে আবী তালিব (রা.)-এর নিকটেও কাবলাল জুমআ’র সুন্নত চার রাকাত।

৪. জাবালা ইবনে সুহাইম রাহ. সহীহ সনদে আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা. )থেকে বর্ণনা করেন, أنه كان يصلي قبل الجمعة أربعا لا يفصل بينهن بسلام ‘তিনি জুমআ’র আগে চার রাকাত পড়তেন। মাঝে সালাম ফেরাতেন না।’ (শরহু মাআনিল আছার, তহাবী পৃ. ১৬৪-১৬৫ আছারুস সুনান পৃ. ৩০২ফাতহুল বারী৫/৫৩৯)আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. জুমআ’র আগে দীর্ঘসময় নামায পড়তেন। কিন্তু উপরের বর্ণনায় চার রাকাতকে আলাদা করে এজন্যই উল্লেখ করা হয়েছে যে, তা সুন্নতে মুআক্কাদাহ।

 ৫.খাইরুল কুরূনে সাহাবা-তাবেয়ীনের সাধারণ আমল এটিই ছিল। তাবেয়ী আমর ইবনে সায়ীদ ইবনুল আস রাহ. (৭০হি.) বলেন, كنت أرى أصحاب رسول الله صلى الله عليه وسلم، فإذا زالت الشمس يوم الجمعة، قاموا فصلوا أربعا‘আমি আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাহাবীগণকে দেখতাম, জুমআ’র দিন সূর্য যখন ঢলে যেত তখন তাঁরা দাড়িয়ে যেতেন এবং চার রাকাত পড়তেন।’

সাহাবা-তাবেয়ীনের এই সাধারণ কর্মধারা প্রমাণ করে, জুমআ’র আগে নফল নামাযের রাকাত-সংখ্যা যদিও নির্ধারিত নয়, প্রত্যেকে নিজ নিজ ইচ্ছা ও অভিরুচি অনুযায়ী পড়বে। তবে এসময় চার রাকাত নামাযের বিশেষ গুরুত্ব ছিল। আর তা পড়া হত সূর্য ঢলে যাওয়ার পর দ্বিতীয় আযানের আগে।

আর আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা.-এর ঐ চার রাকাতের আদেশ দেওয়া এবং খলীফায়ে রাশেদের তাঁর সাথে একমত থাকা, বলাই বাহুল্য, নিছক ইজতিহাদের ভিত্তিতে হতে পারে না। এ কারণে তাঁর এই হুকুম ‘‘মারফূ হুকমী’’ হাদীসের অন্তর্ভুক্ত।যারা দাবি করেন কোনো হাদীসেই আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জুমআ’র আগে নামায পড়া প্রমাণিত নয়-না ঘরে, না মসজিদে, তাদের দাবি সত্য নয়। যদি তা সত্যও হত তবুও উপরোক্ত আছর, সাহাবা-তাবেয়ীনের ব্যাপক রীতি এবং উপরে উল্লেখিত ‘মারফূ হুকমী’ একথা প্রমাণে যথেষ্ট হত যে, জুমআ’র আগে চার রাকাত সুন্নতে রাতিবা (মুআক্কাদাহ) রয়েছে।

ইমাম ইবনে রজব রাহ. লিখেছেন, ‘এ বিষয়ে ইজমা আছে যে, জুমআ’র আগে সূর্য ঢলার পর নামায পড়া একটি উত্তম আমল।’ মতপার্থক্য শুধু এখানে যে, ঐ নামায জোহরের আগের সুন্নতের মতো সুন্নতে রাতিবা, না আসরের আগের নামাযের মতো মুস্তাহাব। অধিকাংশ ইমামের মতে তা সুন্নতে রাতিবা (মুআক্কাদাহ)। আওযায়ী, সুফিয়ান ছাওরী, আবু হানীফা ও তাঁর সঙ্গীদের সিদ্ধান্ত এটাই। ইমাম আহমদ রাহ.-এর বক্তব্য থেকেও তা-ই প্রকাশিত। তবে শাফেয়ী মাযহাবের পরবর্তী অনেক ফকীহ বলেছেন, তা মুস্তাহাব, সুন্নতে রাতিবা নয়।(ফাতহুল বারী, ইবনে রজব, খ. ৫, পৃ. ৫৪১, ৫৪২-৫৪৩)

সুত্রঃhttp://quranerjyoti.com

পূর্বে উত্তর প্রদান করেছেন Junior User (87 পয়েন্ট)

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+2 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
0 টি উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
25 মে "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন রাজু১২ New User (7 পয়েন্ট)
0 টি ভোট
1 উত্তর
20 ফেব্রুয়ারি 2014 "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাত সদস্য
0 টি ভোট
4 টি উত্তর
14 ফেব্রুয়ারি 2014 "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন তানভীর

 

(হেল্পফুল হাব এ রয়েছে এক বিশাল প্রশ্নোত্তর ভান্ডার। তাই নতুন প্রশ্ন করার পূর্বে একটু সার্চ করে খুঁজে দেখুন নিচের বক্স থেকে)

(হেল্পফুল হাব সকলের জন্য উন্মুক্ত তাই এখানে প্রকাশিত প্রশ্নোত্তর, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর)

...