বাংলায় সর্বপ্রথম, সর্ববৃহৎ ও সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক ও সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন একদম বিনামূল্যে এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন। রেজিস্ট্রেশান না করেই অংশগ্রহণ করতে পারবেন তবে, সর্বোচ্চ সুবিধার জন্য বিনামূল্যে রেজিস্ট্রেশান করুন!

> বাংলা ভাষায় সর্বপ্রথম সম্পূর্ণ প্রশ্ন-উত্তরভিত্তিক এবং সমস্যা সমাধানের উন্মুক্ত কমিউনিটি "হেল্পফুল হাব" এ আপনাকে স্বাগত, এখানে আপনি যে কোনো প্রশ্ন করে উত্তর নিতে পারবেন এবং কোনো প্রশ্নের সঠিক উত্তর জানা থাকলে তা প্রদান করতে পারবেন।

Welcome to Helpful Hub, where you can ask questions and receive answers from other members of the community.

15.1k টি প্রশ্ন

16.8k টি উত্তর

5.9k টি মন্তব্য

6.6k জন নিবন্ধিত

+1 টি ভোট
1.7k বার প্রদর্শিত

ইসলামে প্রেম করা হালাল নাকি হারাম? বা প্রেম করা জায়েজ?

"ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন

5 উত্তর

+4 টি ভোট

LBW is completely prohibited in Islam. LBW means ''Love Before Wedding''. বিবাহের আগে প্রেম করা হারাম। কাউকে পছদ হলে তাকে তাড়াতাড়ি বিয়ে করাই হল উত্তম।

উত্তর প্রদান করেছেন Junior User (40 পয়েন্ট)
খুব ভালো কিছু জানতে পারলাম।
+1 টি ভোট

বিয়ের পূর্বে প্রেম জিনার সমতুল্য । ইহা কবিরা গুনাহ

উত্তর প্রদান করেছেন Junior User (33 পয়েন্ট)

ভাই যদি শুধু পরিচয় থাকে এবং মোবাইল ফোনে কথা বলে প্রেম করি তাহলেও কি জিনার সমতুল্য হবে? আমি বলতে চাচ্ছিলাম যদি কোন প্রকার শারীরিক সম্পর্ক না রেখে প্রেম করি তাহলে কি হবে?

আপনি ভাল কোন আলেম থেকে জেনে নিন। ভাল হবে।

কাজের প্রয়োজন বাদে মানসিক প্রয়োজনে বা অপ্রয়োজনে কথা বললে তা মনের ব্যাভিচার হবে।

Right

হা ভাই, ওটা হবে কানের জীনা।

বিয়ে করা ছাড়া প্রেম করাটা সম্পূর্ণ রূপে হারাম। দেখুন সূরা মায়েদা(৫:৫)
তাছাড়া ও নবীজির একটি হাদিসে আছে, "যেখানে একজন নারী এবং পুরুষ থাকে(মানে স্বামী স্ত্রী নয়) সেখানে তৃতীয় জন থাকে সে হচ্ছে শয়তান" ---- সহি মুসলিম

মোট কথা আমাদের এই সব থেকে সতর্ক থাকতে হবে। ভাল মন্দ একমাত্র আল্লাহই ভাল জানেন।

কান ও মুখের জেনা হবে।এবং তা অবশ্যই হারাম এবং কিবিরা গুনা।

0 টি ভোট

নিজের স্ত্রী ছাড়া অপর যেকোন মহিলার সাথে প্রেম করা হারাম।

উত্তর প্রদান করেছেন New User (9 পয়েন্ট)
0 টি ভোট

নিজের বিবি ছাড়া অপর যেকোন মহিলার সাথে প্রেম করা হারাম।

উত্তর প্রদান করেছেন New User (9 পয়েন্ট)
0 টি ভোট

জবাব:

প্রিয় প্রশ্নকারী ভাই, পরপুরুষ পরনারীর সঙ্গে এবং পরনারী পরপুরুষের সঙ্গে প্রেম নিঃসন্দেহে হারাম। কেননা,

১.আল্লাহ তাআলা বলেন –
وَالْمُحْصَنَاتُ مِنَ الْمُؤْمِنَاتِ وَالْمُحْصَنَاتُ مِنَ الَّذِينَ أُوتُواْ الْكِتَابَ مِن قَبْلِكُمْ إِذَا آتَيْتُمُوهُنَّ أُجُورَهُنَّ مُحْصِنِينَ غَيْرَ مُسَافِحِينَ وَلاَ مُتَّخِذِي أَخْدَانٍ “তোমাদের জন্যে হালাল সতী-সাধ্বী মুসলমান নারী এবং তাদের সতী-সাধ্বী নারী, যাদেরকে কিতাব দেয়া হয়েছে তোমাদের পূর্বে, যখন তোমরা তাদেরকে মোহরানা প্রদান কর তাদেরকে স্ত্রী করার জন্যে, কামবাসনা চরিতার্থ করার জন্যে কিংবা গুপ্ত প্রেমে লিপ্ত হওয়ার জন্যে নয়।” (সূরা মায়িদা ৫)

২. তাছাড়া এজাতীয় প্রেম নর-নারীকে জিনার নিকটবর্তী করে দেয়। আর জিনা মারাত্মক একটি কবিরা গুনাহ। জিনা তথা অবৈধ শারীরিক সম্পর্ক হারাম  এবং যে সকল জিনিস জিনার নিকটবর্তী করে দেয় তাও হারাম। আল্লাহ তাআলা বলেন- وَلا تَقرَبُوا الزِّنى إِنَّهُ كانَ فاحِشَةً وَساءَ سَبيلًا “আর ব্যভিচারের কাছেও যেয়ো না। নিশ্চয় এটা অশ্লীল কাজ এবং মন্দ পথ।”(সূরা ইসরা ৩২)

৩. প্রেম করলে শয়তান অবশ্যই জিনা করতে প্রলুব্ধ করবে। প্রেমিক-প্রেমিকা নির্জনতা কামনা করবে। আর এটা হারাম। রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন, أَلاَ لاَ يَخْلُوَنَّ رَجُلٌ بِامْرَأَةٍ إِلاَّكَانَ ثَالِثَهُمَا الشَّيْطَانُ “শুনে রাখ, কোন পুরুষ যেন কোন মহিলার সঙ্গে নিভৃতে একত্রিত না হয় অন্যথায় শয়তান অবশ্যই তৃতীয় জন হিসাবে হাযির থাকে।” (ইবনু মাজাহ ২৩৬৩, তিরমিযি ২১৬৫)

৪. অপর হাদীসে রাসূলুল্লাহ ﷺ বলেছেন-

اَلْعَيْنَانِ زِنَاهُمَا النَّظْرُ وَالْاُذُنَانِ زِنَاهُمَا الْاِسْتِمَاعُ وَاللِّسَانُ زِنَاهُمَا الْككَلَامُ وَالْيَدُ زِنَاهُمَا الْبَطْشُ وَالرِّجْلُ زِنَاهُمَا الخُطَا وَالْقَلْبُ يَهْوِىْ وَيَتَمَنَّى وَيُصَدِّقُ ذَالِكَ الْفَرْجُ اَوْ يُكَذِّبُه

“দুই চোখের ব্যভিচার হল হারাম দৃষ্টি দেয়া, দুই কানের ব্যভিচার হল পরনারীর কণ্ঠস্বর শোনা, যবানের ব্যভিচার হল অশোভন উক্তি, হাতের ব্যভিচার হল পরনারী স্পর্শ করা, পায়ের ব্যভিচার হল গুনাহর কাজের দিকে পা বাড়ান, অন্তরের ব্যভিচার হল কামনা-বাসনা আর গুপ্তাঙ্গঁ তা সত্য অথবা মিথ্যায় পরিণত করে।” (মেশকাত ১/৩২)

লা বাহুল্য, এর সবগুলোই ধীরে ধীরে হারাম-প্রেমে অনুপ্রেশ করে থাকে।

৫. এছাড়াও হারাম-প্রেম অনেক সময় বান্দাহকে শিরকের নিকটবর্তী করে দেয়। কারণ অনেক সময় তারা একে অপরকে এতটাই ভালবাসা শুরু করে দেয় যে প্রকার ভালবাসা পাওয়ার দাবীদার একমাত্র আল্লাহ। আল্লাহ তাআলা বলেন – وَمِنَ النَّاسِ مَن يَتَّخِذُ مِن دُونِ اللَّـهِ أَندَادًا يُحِبُّونَهُمْ كَحُبِّ اللَّـهِ وَالَّذِينَ آمَنُوا أَشَدُّ حُبًّا لِّلَّـهِ “আর কোন লোক এমনও রয়েছে যারা অন্যান্যকে আল্লাহর সমকক্ষ সাব্যস্ত করে এবং তাদের প্রতি তেমনি ভালবাসা পোষণ করে, যেমন আল্লাহর প্রতি ভালবাসা হয়ে থাকে।” (সূরা বাক্বারা ১৬৫)

উত্তর দিয়েছেন
মাওলানা উমায়ের কোব্বাদী নকশবন্দী
সূত্রঃ http://quranerjyoti.com
উত্তর প্রদান করেছেন Junior User (92 পয়েন্ট)

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

0 টি ভোট
1 উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
31 অগাস্ট 2013 "ধর্ম ও বিশ্বাস" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাত সদস্য
+1 টি ভোট
2 টি উত্তর
0 টি ভোট
1 উত্তর
+1 টি ভোট
2 টি উত্তর
0 টি ভোট
2 টি উত্তর

 

(হেল্পফুল হাব এ রয়েছে এক বিশাল প্রশ্নোত্তর ভান্ডার। তাই নতুন প্রশ্ন করার পূর্বে একটু সার্চ করে খুঁজে দেখুন নিচের বক্স থেকে)

(হেল্পফুল হাব সকলের জন্য উন্মুক্ত তাই এখানে প্রকাশিত প্রশ্নোত্তর, মন্তব্য, ছবি, অডিও, ভিডিও বা যাবতীয় কার্যকলাপের সম্পূর্ণ দায় শুধুমাত্র সংশ্লিষ্ট প্রকাশকারীর)

...